Showing posts with label অর্শ বা পাইলস. Show all posts
Showing posts with label অর্শ বা পাইলস. Show all posts

Wednesday, November 7, 2018

পাইলস কি ? অর্শ বা পাইলস থেকে মুক্তির উপায় ! গেজ রোগের চিকিৎসা

যদি এই সমস্যায় আপনি আক্রান্ত হয়ে থাকেন তাহলে আপনি হয়তো - পাইলস ডাক্তার, পাইলস কেন হয়, পাইলস হলে করণীয়, পাইলস এর ওষুধ, পাইলস থেকে মুক্তির উপায়, পাইলস এর ঘরোয়া চিকিৎসা, পাইলস এর হোমিও চিকিৎসা, পাইলস অপারেশন ইত্যাদি খুঁজে বেড়াচ্ছেন। পাইলস, অরিশ বা অর্শ -গেজ যাই বলেন মলদ্বারের এই জটিল রোগ নিয়ে কষ্টে ভোগা মানুষের সংখ্যা আমাদের দেশে প্রচুর।

অধিকাংশ ক্ষেত্রে সচেতনতা, সঠিক চিকিৎসা ও অবহেলার কারণে কারো কারো ক্ষেত্রে তা ক্যান্সারের ক্ষতে রূপ নেয়। তাছাড়া সঠিক চিকিৎসার অভাবে এনিয়ে অনেক ভোগান্তি পোহাতে হয় রোগীকে। এল্যোপাথিকে অপারেশন করার পর সেটা স্থায়ী নির্মূল না হওয়াতে সেটা পূনরায় জটিল আকার ধারন করে কয়েক বছর পরেই। আমাদের দেশে সঠিক চিকিৎসা ও সচেতনতার অভাবে প্রায় পরিবারেই এই জটিল রোগে আক্রান্ত রোগী পাওয়া যায়।

অর্শের লক্ষণসমূহ

অর্শ বা পাইলস কিভাবে বুঝা যাবে এই নিয়ে অনেকে আবার চিন্তিত থাকে। চলুন তাহলে দেখে নেই কিভাবে অর্শ বা পাইলস হয়েছে বুঝতে পারবেন।মলদ্বারের অভ্যন্তরে হলে নিচের লক্ষণগুলো দেখা যেতে পারেঃ
  • পায়খানার সময় ব্যথাহীন রক্তপাত হলে।
  • মলদ্বারের ফোলা বাইরে বের হয়ে আসতে পারে, নাও পারে। যদি বের হয় তবে তা নিজেই ভেতরে চলে যায় অথবা হাত দিয়ে ভেতরে ঢুকিয়ে দেয়া যায়। কখনও কখনও এমনও হতে পারে যে, বাইরে বের হওয়ার পর তা আর ভেতরে প্রবেশ করানো যায় না বা ভেতরে প্রবেশ করানো গেলেও তা আবার বের হয়ে আসে।
  • মলদ্বারে জ্বালাপোড়া, যন্ত্রণা বা চুলকানি হলে।
  • কোন কোন ক্ষেত্রে মলদ্বারে ব্যথাও হতে পারে।
মলদ্বারের বাইরে হলে নিচের লক্ষণগুলো দেখা যেতে পারেঃ
  • মলদ্বারের বাইরে ফুলে যাওয়া যা হাত দিয়ে স্পর্শ ও অনুভব করা যায়।
  • কখনও কখনও রক্তপাত বা মলদ্বারে ব্যথাও হতে পারে।

অর্শ বা পাইলস রোগে করণীয়

  • কোষ্ঠকাঠিন্য যেন না হয় সে বিষয়ে সতর্ক থাকা এবং নিয়মিত মলত্যাগ করার চেষ্টা করতে হবে।
  • পর্যাপ্ত পরিমাণে শাকসব্জী ও অন্যান্য আঁশযুক্ত খাবার খাওয়া এবং পানি(প্রতিদিন ৮-১০ গ্লাস) পান করতে হবে।
  • সহনীয় মাত্রার অধিক পরিশ্রম না করা।
  • প্রতিদিন ৬-৮ ঘন্টা ঘুমানো।
  • শরীরের ওজন নিয়ন্ত্রণ রাখতে হবে।
  • টয়লেটে অধিক সময় ব্যয় না করার চেষ্টা করতে হবে।
  • সহজে হজম হয় এমন খাবার গ্রহণ করতে হবে।
  • ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া লেকজেটিভ বেশী গ্রহণ না করা।
  • মল ত্যাগে বেশী চাপ না দেয়া।
  • দীর্ঘমেয়াদী ডায়রিয়া আমাশয় থাকলে তার চিকিৎসা করাতে হবে।

অর্শ বা পাইলস থেকে মুক্তির উপায়

পাইলসের চিকিৎসার ক্ষেত্রে এখন পর্যন্ত এল্যপাথিক স্থায়ী ঔষধ তেমন আবিস্কৃত হয় নি। তবে অপারেশন করা হয়। কিন্তু পাইলসের অপারেশন সেনসেটব জায়গায় হওয়ায় তা কখনো ক্যান্সারে রুপ নেয় আাবার পুনরায় তৈরি হয়। এই রোগ থেকে মুক্তির স্থায়ী উপায় হলো অভিজ্ঞ একজন হোমিও চিকিৎসকের নিকট থেকে প্রপার হোমিও চিকিৎসা গ্রহণ করা। 
বিস্তারিত